সনাতন ধর্মে মদ্যপান করা কি বৈধ?

 প্রশ্নঃ- সনাতন ধর্মে মদ্যপান করা কি বৈধ?

উত্তরঃ-
সনাতন ধর্মে শরীরে ক্ষতিকারক সকল দ্রব্যের উপর রয়েছে কঠোর নিষেধাজ্ঞা। তাই সকলের উচিত মদ বা মাদক সেবনের মতো ধ্বংসাত্মক আসক্তি থেকে দূরে থাকা।।
পুজোর সময় মদপান করাকে কেন্দ্র করে ভিন্ন ধর্মীদের থেকে অামাদের ধুয়ো শুনতে হয়। ধুয়ো শুনার জন্য মূলত অামরা নিজেরাই দায়ী, কারণ দেব বিগ্রহের স্থান অতি পবিত্র। সেই পবিত্র স্থানেই অামরা মদপান করি অার অশ্লীল গানে নাচানাচি করি। যার কারণে জেনেশুনে গালি কিংবা ধুয়ো শুনার ভাগীদার হয়ে যায়। যা হোক সেই মদপান বা নেশাজাতীয় সনাতন ধর্ম সম্মত কিনা? কিংবা তা অামাদের ধর্মে বৈধ কি না তা অবশ্যই অামাদের জানা দরকার।।
অামাদের বৈদিক সংহিতা অার পবিত্র বেদ কি বলে?
পবিত্র ঋগবেদ ৮/২১/১৪ তে বলা হয়েছে—।।
(বাংলা সংস্কৃত)
নকী রেবন্তঃ সখ্যায়া বিন্দসে পীয়ন্তি তে সুরস্বঃ।।
য়দা কুয়োসি নদানু সমূহস্যাদিত পিতেব হূয়সে।।
বঙ্গানুবাদ- তোমার নেশাকারী সঙ্গী/বন্ধু যদি সবচেয়ে বিদ্বান বা ধনীও হয় তারপর ও বজ্রপাততূল্য এবং অবশ্য পরিত্যজ্য। এখানে উক্ত মন্ত্র অনুসারে বুঝা যাচ্ছে নেশাগ্রস্থ ব্যক্তি ধনী কিংবা বিদ্ধান হলেও তাকে পরিত্যাগ করা উচিত।
স্মৃতিশাস্ত্র মনুসংহিতার ১১/৯৪ তে স্পষ্ট বলা হয়েছে:-
সুরা বৈ মলমন্নানাং পাপ্মা চ মলমুচ্যতে।।
তস্মাদ্বাহ্মণরাজন্যৌ বৈশ্যশ্চ ন সুরাং পিবেৎ ॥
বঙ্গানুবাদ- সুরা (মদ) হলো অন্নের মল, পাপকে মল শব্দে বলা যায়, এই হেতু ব্রাহ্মণ, ক্ষত্রিয় ও বৈশ্য কদাচিৎ সুরাপান করিবে না যদি করে তবে উক্ত প্রায়শ্চিত্ত করিবে।।
উক্ত শ্লোক অনুসারে মদ পান না করার কথা বলেছে, যদি ও বা করে সেহেতু প্রায়শ্চিত্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন মহর্ষি মনু।
সুতরাং সনাতন ধর্মে মদপান নিষিদ্ধ।।
আসুন সাত্ত্বিকভাবে পালন করি প্রতিটা ধর্মীয় অনুষ্ঠান।
ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন

মন্তব্য করুন

সাবমিট

© বাংলাদেশ সনাতনী সেবক সংঘ | সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত

Powered by Smart Technology